বুধবার - কলকাতা



সুনীল নীলিমা, তুচ্ছ অমরত্ব

Written by Sourav Mitra, Posted on 2014-09-07,11:19:48 p

Sunil Gongopadhyay,Writter Sunil Ganguly,Birth Day of Sunil Gongopadhyay

চলে ত যেতেই হত। কবিতার জন্য তিনি ত' অমরত্বকেও তাচ্ছিল্য করেছিলেন। অভিন্নহৃদয় বন্ধু ত' সেই কবে 'যেতে পারি, কিন্তু কেন যাব?' বলে মৃত্যুকে চ্যালেঞ্জ জানিয়েও চলে গিয়েছিলেন। কিন্তু সুনীল মানেই জীবন, সুনীল মহাসাগরের মতই অসীম তার প্রাণশক্তি, বাঁচার তাগিদ, আরও কিছু করবার তাগিদ, অফুরান যৌবনোচ্ছ্বাস। দেশ ভাগের ক্ষত নিয়ে এদেশে আসা, রিফিউজি কলোনিতে শৈশব যাপন, ছাত্র আন্দোলন থেকে হীরেন মুখোপাধ্যায়ের পোলিং এজেন্ট হওয়া, যৌবনে সাহিত্যিক হিসেবে খ্যাতি-যশ, বন্ধু সাহিত্যিকদের সাথে রাত শাসন, স্কলারশিপ নিয়ে আমেরিকা যাওয়া, প্রেম সবমিলিয়ে এক বর্ণময় জীবন।

আয়ুষ্কাল ত' পেয়েছিলেন প্রায় ৮০ ছুঁই ছুঁই। সাহিত্য কর্মের কলেবরে ও বিস্তারেও ছুঁয়েছেন আমাদের সাহিত্যের শ্লাঘা, মহীরুহ সম রবি ঠাকুরকে। নিজের জীবনের অভিজ্ঞতা সম্বলিত উপন্যাস যেমন যুবক-যুবতী, প্রতিদ্বন্দ্বী, অরণ্যের দিনরাত্রি এবং অবশ্যই নীললোহিত সিরিজ। তাঁর মননের আরেক প্রতিবিম্ব ধরা পড়েছে কাকাবাবুর ক্ষুরধার মস্তিষ্কে। এর মাঝে মাঝেই চলেছে পূর্ব-পশ্চিম, প্রথম আলো, সেই সময় এর মত বিরাট সাহিত্য কর্ম, যা শুধু তাঁর সাহিত্যগুণের জন্যই শুধু নয়, অমর হয়ে থাকবে বিস্মৃতপ্রায়, অচর্চিত ইতিহাসের প্রামাণ্য দলিল হিসেবে। এই উপন্যাস গুলির থেকে আমরা অন্য এবং অনন্য এক সুনীলের পরিচয় পাই। বিজ্ঞানের ছাত্র হওয়া সত্ত্বেও সুনীল  যে কতখানি ইতিহাসের নিষ্ঠাবান ও আগ্রহী ছাত্র ছিলেন এই 'প্রজেক্ট' গুলির সফল বাস্তবায়ন থেকে তাঁর প্রমাণ মেলে। কিন্তু তবুও যেন আমাদের সুনীল সেভাবে আন্তর্জাতিক হয়ে উঠলেন না। প্রকাশকের অনুরোধে কখনও বা কিস্তির চাপ, কাউকে 'না' বলতে না পারা, যেকোনো অনুষ্ঠান বা সম্মেলনে অশক্ত শরীর নিয়ে উপস্থিত হওয়া আয়োজকদের অনুরোধ ফেরাতে না পেরে সব মিলিয়ে আমাদের ভালোবাসার অত্যাচারেই আমরা তাঁর অগণিত পাঠক, ভক্ত, গুণগ্রাহীরা তাঁকে আর ব্যাপৃত হতে দিলাম না। অতিলিখনের স্বীকার হচ্ছেন, নিজের ঘনিষ্ঠ মহলে বহুবার এই আক্ষেপও করেছেন। 

লন্ডন বই মেলায় যখন থিম দেশ- ভারত, মঞ্চে দিকপাল অমর্ত্য সেন, লেখক বিক্রম শেঠ এবং সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়। সেখানে তাঁর প্রথম আলোর ইংরাজিতে অনূদিত সংস্করণ 'First Light' নিয়ে সেখানকার স্থানীয় ভারতীয়দের উৎসাহ কম ছিলনা। কিন্তু একটাও রিডিং সেশন আয়োজিত হল না। পৃষ্ঠপোষকতার অভাবেই হোক, বিদেশে পরিচিতির অভাবই হোক, প্রাপ্য খ্যাতি বা যশ থেকে দূরেই থাকতে হয়েছে তাঁকে। ভারতীয় লেখকদের মধ্যে সম্ভাব্য নোবেল প্রাপকদের লঙ লিস্ট থেকে শর্ট লিস্টে ঢুকতে পারলেন না তিনি। শেষ করে যেতে পারলেন না তাঁর স্বপ্নের প্রজেক্ট মহাভারতের পূর্ণাঙ্গ বাংলা গদ্যরূপ রচনা।

তাঁর শেষ পূর্ণাঙ্গ উপন্যাস 'সরস্বতীর পায়ের কাছে'। তিনি চললেন তাঁর প্রিয় দিকশুণ্যপুরে, আমরা পড়ে রইলাম তাঁর পায়ের কাছে। 



আমাদের উপপদ এর সরঞ্জাম গুলি

আপনার মন্তব্য



শেষ পাওয়া এই বিভাগের খবর

জনপ্রিয় খবর গুলি