রবিবার - কলকাতা



কলকাতা ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল ২০১৩

Written by Sourav Mitra, Posted on 2013-11-07,10:34:41 p

Kolkata International Film Festival

লিপস্টিক পড়া নায়কের সাথে পটে আঁকা বিবির মত পটলচেড়া চোখের নায়িকা, গাছের তলায় শুয়ে বসে গান, ইস্টম্যান কালার ফিল্ম। এই বন্ধ্যা বাংলা ছবির হঠাৎ নিদারুণ প্রসব যন্ত্রণা, জন্ম নিল তিন দামাল ছেলে। মোটামুটি একই সময়ে, আর সেই তিন সন্তানের দৌড়াতে রে রে করে উঠল কেউ, কেউ দিল উচ্ছ্বসিত প্রশ্রয়। তাদের মধ্যে এক কৃতি সন্তানের মৃত্যুর ক্ষত নিয়েই ১৯৮৫ সালে তৎকালীন পশ্চিমবঙ্গ সরকার গড়ে তুলল বাংলা ছবির তীর্থক্ষেত্র নন্দন। কাল পেরিয়ে যা প্রাদেশিকতা ছাড়িয়ে, দেশ ছাড়িয়ে বিশ্ব চলচ্চিত্রের এক গুরুত্বপূর্ণ কেন্দ্র হয়ে উঠল। বৃত্ত সম্পূর্ণ হল ১৯৯৫ সালে যখন নন্দন হয়ে উঠল দেশের দ্বিতীয় আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবের কেন্দ্র। তারপর আমরা দেখেছি জাফর পনাহি, পেদ্রো আলমোদোভার, সোলানোসের মত দিকপালদের উপস্থিতিতে কৌলীন্য লাভ করেছে আমাদের কোলকাতার এই অহঙ্কারের উৎসব (বইমেলা, দুর্গাপূজা ব্যতীত)। সেই থেকে আজ, ১৮ বছর।এই বছর আধুনিক বাংলা ছবির গর্ভজাত আরেক রত্ন কে হারিয়ে শোকাক্রান্ত হৃদয়ে আমরা আরও একবার চলচ্চিত্র জশন্‌-এ মেতে উঠব। এবারের ফোকাস হল দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার চলচ্চিত্র। 'সেন্টেনারি ট্রিবিউট' বিভাগে দেখানো হবে পরিচালক .এস.সথ্যু-র 'গরম হাওয়া'। বিদেশী ছি গুলির মধ্যে আছে 'Gone With The Wind' (পরিচালক- Victor Fleming), 'Elemer Gantry' (পরিচালক- Richard Brooks)। সিনেমা প্রেমী তথা সিনেমায় নিবেদিত প্রাণ ছাত্রদের জন্যেও বিশেষ আকর্ষণের ব্যাপার, আন্তেনিয়নি-র বেশ কিছু ছবি দেখানো হবে এবারের চলচ্চিত্র উৎসবে। যার মধ্যে অবশ্যই আছে 'লা নত্তে' (The Night), 'ক্রোনাকা দি উন্‌ আমোর' (Story of a Love Affair)। এছাড়াও আছে বিশেষ সেকশন 'স্টুডেন্ট শর্টস্‌' যাতে ভবিষ্যতের চলচ্চিত্র নির্মাতাদের ছোট্ট প্রয়াস গুলিকে মেলে ধরা হবে আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্রের মহীরুহদের সামনে।
'স্পেসিয়াল ট্রিবিউট' সেকশনে আমাদের ঘরের ছেলের প্রতি থাকছে সশ্রদ্ধ অর্ঘ্য। দেখা যাবে 'দহন', 'অসুখ', 'উনিশে এপ্রিল'-এর মত মাস্টার পিস্‌। 'রেট্রোস্পেক্টিভ' সেকশনে থাকবে দাদাসাহেব ফালকে পুরষ্কারে সম্মানিত, মহান পরিচালক আদুর গোপালকৃষ্ণণের একগুচ্ছ স্মরণীয় সৃষ্টি। এর মধ্যে অন্যতম 'নাল্লু পেন্নুগাল', 'মুখামুখাম'-এর মত ছবি। থাকছে পরিচালক শিভেন্দ্র সিংহ দুঙ্গারপুর নির্মিত ছবি 'পি.কে.নাইয়ার', প্রবাদপ্রতিম পি.কে.নাইয়ারের প্রতি কুর্নিশ এবং এতে অভিনয় করেছেন পি.কে.নাইয়ার নিজেও। পরিচালকের পেডিগ্রিও সম্ভ্রম জাগানোর মত। প্রথম জীবনে ছিলেন গুলজারের সহকারী, পরে তারই অনুপ্রেরণায় এবং পরামর্শে পুণে ফিল্ম ইন্সটিটিউটে প্রথাগত শিক্ষা লাভ করেন। এর আগে প্রায় ৪০০ কমার্শিয়ালে নির্দেশনা করেছেন তিনি। পৃথিবীর সবথেকে বড় ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রি হল ভারতীয় চলচ্চিত্র শিল্প। নানাবিধ ভাষা, ধারা, গল্প সবকিছু কেন্দ্র করে এক অতিকায় কর্মযজ্ঞ, মানুষকে হাসিয়েছে, কাঁদিয়েছে, যুবকদের চুলের কেতা বদলিয়েছে, পাশের বাড়ির মেয়েদের চলা ফেরায় হঠাৎ যুগিয়েছে স্পর্ধা, সারাদিন লোকের মুখ ঝামটা খাওয়া কেরানী, রিক্সাচালক তাদের অপমানের জবাব খুঁজে পেয়েছে, মনে মনে হয়ত অবিকল সেই সব দৃশ্যের পুনরাভিনয় করেছে বারবার। কোটি কোটি মানুষের জীবীকার সংস্থান এই ভারতীয় সিনেমা, দাদাসাহেব ফালকে থেকে শুরু করে যশ চোপড়া হয়ে ষ্যাম বেনেগাল। মহান দেশের মহান বৈচিত্র্য তার সিনেমাতেও প্রতিভাত হয়েছে। বলিউড নয়, বিশাল ভারতের সিনেমা, আর সেই বিপুলতাকে সম্মান জানিয়েই তার ১০০ বছর পূর্তি উদ্‌যাপন করা হবে এই বছর। বিগত কিছু বছর ধরে এই উৎসব নিয়ে যে বিতর্ক হয়েছে সে নিয়ে মথা ঘর্মাক্ত করার দায় আমাদের কেউ দেয়নি, তা আমাদের কাজও নয়। যিনিই আসুন, যেভাবেই উদ্‌বোধন হোক, গাম্ভীর্য কমুক বা বাড়ুক আগামী ১০ই থেকে ১৭ই শহরের আপামর সিনেমাপ্রেমীদের স্টেটাস থাকবে একটাই '8 days 63 countries 152 director 189 films', তাহলেই এই মহোৎসবের সার্থকতা। সেলাম সবচেয়ে বলিষ্ঠ বিনোদন মাধ্যমকে।



আমাদের উপপদ এর সরঞ্জাম গুলি

আপনার মন্তব্য



শেষ পাওয়া এই বিভাগের খবর

জনপ্রিয় খবর গুলি